আধুনিক কবিতা সম্পর্কে দু’টি কথা

যারা আধুনিক ধারার কবিতা ছাড়া কিছুই বোঝেন না তাঁদের মধ্যে এক জাতীয় ঊন্নাসিকতা কাজ করে। তাঁদের মতের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই দু’টি কথা বলতে চাই;

মৃত্যুর সময়ও গোলাম আযম নষ্ট ‘রাজনীতি’র মাধ্যমে শেষ পাপ কাজটি করে গেলেন

মাহবুবুল আলম

বাতাসের রাহে দিয়ে দিও আমায়...

রেহানা জব্বারি একজন ইরানি ইন্টেরিয়র ডিজাইনার। তাকে গত ৮ বছর আগে গ্রেফতার করা হয় নিজের ক্লায়েন্টকে তার ফ্ল্যাটেই খুনের অভিযোগে। খুনের সময় রেহানা সেই ফ্ল্যাটের ইন্টেরিয়রের দায়িত্বে ছিলো। ৩য় এক ব্যক্তির উপস্থিতিও হত্যাকালে সেখানে প্রমাণিত হয়। রেহানার মতে সে তার ট্যাক্সি চালক। আর নিহতের পরিবারের মতে সে ছিলো রেহানার বয়ফ্রেন্ড। রেহানার অভিযোগ ছিলো- তার ক্লায়েন্ট তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করায় গাড়ি চালক বাঁধা

বদ এখন নাগরিকের ব্লগার

ভুলে গেছিলাম বদ নাগরিকে ডুখছে আমি আমার নিজেকে একেবারেই বুঝি না। কিন্তু, এতোটুকু বলতে পারি যে, আমি খুব বেশি পরিমাণে অগোছালো। আমার জীবন টাও তেমনি অগোছালো। আমার মতে, জীবনে নিয়ম বলতে কিছু নাই। আর আরেকটা জিনিস, যেটা সবাই আমার সম্পর্কে বলে তা হলো, আমার মাথায় সিরিয়াস সমস্যা আছে। আমি জানি না এটা সত্যি কিনা, কিন্তু নিজেকে আমি এভাবেই খুব ভালোবাসি।

মরন

উত্তেজনায়..আকাশ কাঁপে..মেঘের কোলে
রহস্যরা..রহস্য ময় ..দোলনা দোলে !

বাঘ যে কখন ..এসেছিল ..এ জঙ্গলে
বন্দুকও নেই..বল্লমও নেই..ধরব জালে!

লুপ্ত প্রতাপ..ঘুরছে ফিরছে ..উত্তুরে মেঘ
ও দেশটার ..স্বজন নেই ..মারছে খেপে!

জমিন আমার ..জমিন তোমার ..নেই কোথাও
নিজের বাসে..বাঘের বাসা ..তফাৎএ যাও!

আমার বাড়ি ..কোথায় বলতে ..লজ্জাপাই
গরব আমার ..ধুলোয় লুটায়..ভাবছি তাই!

জীবনের প্রাথমিক শিক্ষাসফর-২য় পর্ব

মাদরাসায় ক্লাস শুরু হওয়ার পর থেকে নিজেকে বড় মানুষ মনে হতে লাগল। নিজের কাজ নিজে করি। নিজে গোসল করি। নিজের বিছানা নিজে করি, ঘুম থেকে ওঠে মশারি উঠাই। আর পড়ালেখা তো আগে থেকেই করি। খাবার-দাবার বাসা থেকে আসত । তিন বেলাই। আব্বু সকালে অফিসে যাওয়ার সময় নাস্তা আর দুপুরের খাবার হটপটে করে নিয়ে আসত । আর সন্ধ্যায় আম্মু খাবার নিয়ে আসত । বাসা থেকে মাদরাসা প্রায় দুই কিঃমিঃ। আব্বু-আম্মু প্রতিদিন আমার জন্য এতদূর থেক

জাতীয় গৌরব রক্ষার দায়িত্ব কার?

জাতীয় গৌরব সমুন্নত রাখার দায়িত্ব কার? নিঃসন্দেহে সরকারের। কারণ তাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করা হয়েছে এই কাজের জন্যই। যদি তারা তা করতে ব্যর্থ্য হয় তাহলে আন্দোলনটা কাদের বিরুদ্ধে হবে বা হওয়া উচিত?

এলিয়েন রহস্য

পর্ব :- ০১

অনেক দিন ধরে মনে একটা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে এবং সেটা হল ইউএফও বা এলিএন এর অস্তিত্ত নিয়ে। কিছুদিন আগেয় মারাঠি একটা ছিনেমা দেখে কৌতুহল বাড়ছে বই কমে নাই । তাই এলিয়েন সম্পর্কে কয়েক পর্বের বিশেষ লেখা প্রকাশের জন্য সচেষ্ট হয়েছি। আজকে তার প্রথম পর্ব :

প্রথমেই দেখে নিই এলিয়েন কি :

মুভি রিভিউ : পিঁপড়াবিদ্যা

অস্বীকার করবো না, সিনেমা হলে যখনই কোন বাংলা ছবি দেখতে যাই তখনি আমি কিছুটা প্রিডিটারমাইন্ড থাকি। মানে দেশি সিনে জগতের হাল-হকিকতের ব্যাপারগুলো মাথায় রেখে অনেকটা জোর করে সিনেমার মান যেমনই হোক ভাল লাগবে গোত্রের মনোভাব নিয়ে হলে ঢুকি। হালের আশিকুর রহমান, স্বপন আহমেদ বা অনন্য মামুন সবার ক্ষেত্রেই সেটা মোটামুটি প্রযোজ্য। তবে বাংলাদেশের যে দু'তিন জন পরিচালক আছেন যাদের মুভি দেখতে যাই ঠিক উল্টো মনোভাব নিয়ে।

'সস্তা সুখের মোড়ক'

হাজার বছর ধরে যে রাত

গ্রাশ করে রেখেছে কোলাহল

নিরবতার চাদর বিছিয়েছে প্রকৃতির কোলে

সেই রাতে আজ আমি জেগে থাকি...

নির্ঘুম চোখে সপ্ন বুনি,

নানান রঙ্গের বর্ণহীন সপ্ন।

রাতের পরে রাত চলে যায়

পায়ের নিচে ফুটপাত বদলায়

চমকে চমকে ভরে থাকে

জিবনের প্রতিটি অদেখা অধ্যায়,

উপন্যাসের গল্পের মতন

আলো আঁধারিতে সস্তা সেন্টের গন্ধ,

রুমালের কোনে সুই করা

সুতোর আঁকনে লেখা যে নাম

অভিমানী সূর্যসন্তানের গল্প

ধরেন একটা টঙের দোকানে মাঝে মাঝেই বন্ধুরা মিলে আড্ডা মারেন, মাঝে মাঝে একা একাই বসে বসে মানুষের আসা যাওয়া দেখেন। দেখেন দোকানের মাঝ বয়সী লোকটা একের পর এক চা বানিয়ে দিয়ে বেড়াচ্ছে চা খেতে আসা লোকজনদের। হুট করে জানলেন যে লোকটার হাতে বানানো চা খেয়ে আড্ডায় মাতেন , রাজনীতির হাজারটা মার প্যাঁচের হিসাব কষেন সেই লোকটা নিজের হাতে দেশকে বাঁচাতে অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করেছে একাত্তরে!! কেমন লাগবে আপনার ??

কালের মহাবিশ্ব।

কাঠ বাঙাল

একেবারে কাঠ-বাঙাল হবার সুবিধেটা কি জানো ;

সাদা কলারের ঘাম হলদে হয়ে গেলেও কিচ্ছু আসে-যায়না ;

আয়রণে জামার ভাঁজ তীক্ষ্ণ ভীষণ । ভেতরটায় কিন্তু কাদামাটির শুদ্ধ গন্ধ আমার ।

একদম কাঠ-বাঙাল আমি

কিটস আর জীবনানন্দ এক করে ফেলি ;

গুলিয়ে আঁখের গুড় হয়ে যায় রবীন্দ্রনাথে বারবার শেক্সপিয়র ।

কঠিন লাগে সব ;

জুতোর তলাটা একপাশ থেকেই ক্ষয়ে যায় প্রতিবার ;

মহাকালের মহাপ্রলয়

ড. আবু সাঈদ চায়ে শেষ চুমুক দিয়ে দোকানীকে জিজ্ঞেস করলেন- "চায়ের দাম কত?"

দোকানী অবাক হবার ভান করে চোখ কপালে তুলে বলল‚ "এইটা আপনি কি কইলেন স্যার? আপনার মতো বিখ্যাত মাইনষের কাছ থেইকা চায়ের দাম নিমু? আপনি ভাবতে পারলেন?"

November 2014
শনিবাররবিবারসোমবারমঙ্গলবারবুধবারবৃহঃবারশুক্রবার
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293012345